Wednesday, 21 June 2017

#মেয়ে চাই#

“আমি মেয়ে চাই !”
কথা হচ্ছিল রনির সাথে। রনি আমার অফিসের কলিগ।  সবেতেই সে একদম যাকে বলে স্টার।  প্রোগ্রামিংই হোক, ক্লায়েন্টকে টুপি পরিয়ে কাজ আদায় করাই হোক, বস কে তেল মারাতেই হোক, জুনিয়রদের থেকে তেল খাওয়াই হোক বা মহিলাদের মন জয় করাই হোক সবেতেই সে এক নম্বর।
তবে যেটা সবচাইতে ও ভাল করে, তা হল গল্প বলা।  ওর গল্পের গরু গাছে নয়, একদম মহাকাশে উঠে যায়।  সে যাক, কিন্তু ব্যাপার হল যে সেই রনি এবারে বিবাহিত জীবনেও ছক্কা হাকিয়েছে, মানে ওই আর কি, বাবা হতে চলেছে।
সেই প্রসংগেই একদিন সেক্টর ফাইভের একটা রেস্তোরাতে বসে কথা হচ্ছিল রনির সাথে।  তখনি ওকে জিজ্ঞেস করলাম - “কিরে কি চাস ? ছেলে না মেয়ে? ”
আজকাল সবাই এতে ডিপ্লোম্যাটিক উত্তর দেয় - “যা হবে, তাই ভাল” ইত্যাদি ইত্যাদি।
কিন্তু আমাদের রনির পেটে তখন তিন পেগ বিয়ার ঢুকে আছে , জানি এই সময় ডিপ্লোমেসি বেরোবে না মুখ থেকে ।  ঠিক তাই হল। 
সহজ সরল স্বীকারোক্তি বেরোল - “আমি মেয়ে চাই !”
তা বেশ ভাল।  আমিও এককালে মেয়ে সন্তান ছেয়েছিলাম, পাইনি, তাই এখনো ইয়ে মানে হাল ছাড়িনি ।  যাই হোক, সে কথা পরে হবে, আপাতত রনির কথায় ফিরি।
এবারে ওকে জিজ্ঞেস করলাম - “কেন মেয়ে চাস? ”
উত্তর এল - “মেয়ে হলে অনেক কম খরচা। ”
এবার আমার অবাক হওয়ার পালা।
বললাম - “কোথায়? উল্টে তো সব জায়গায় লোকে এটাই বলে যে মেয়ে হলে খরচা বেশি বিয়ে দিতে । ”
রনি চুপ খানিকক্ষন।  বেশ জুত করে একটা তন্দুরী চিকেনের পিস তুলে নিয়ে আয়েশ করে সেটা খেতে খেতে বলল - ”সে তো অনেক পরের ব্যাপার, কিন্তু এখন, এই মুহুর্তে ছেলে হলে খরচা বেশি। ”
আমি জিজ্ঞেস করলাম - “কিকরে?”
রনি বলে চলল - “ হিজড়ারা ছেলে হলে ২৫ হাজার নেয়, মেয়ে হলে নেয় ১০-১৫ হাজার।  এছাড়াও হসপিটালের নার্স থেকে কাজের মাসি সবাই মেয়ে হলে কম টাকা চাইবে।
এছাড়া পৈতের অনুষ্ঠান করার দরকার পড়বে না।
তারপর ধরো অন্নপ্রাশনে লোকজনদের বাদ দিতে সুবিধে হবে।  এই ধরো আজ থেকে ৬ মাস পরে এই তোমাকেই চোখ ছলছল করে, গলা কাপিয়ে বলব যে সৈকতদা, বোঝোই তো, মেয়ে হলে কতো খরচা করতে হবে বিয়েতে, তাই আর এই অন্নপ্রাশনের মত ছোটখাট অনুষ্ঠানে আর তোমাকে ডেকে কষ্ট দিলাম না।  এটা শুনলে কি তুমি আর খারাপ পাবে বল ?
তাই হিসেব করে দেখলাম সব মিলিয়ে মেয়ে হলে নেট সেভিংস অনেক বেশি হবে।  তাই আমি মেয়েই চাই। ”
মেয়ে সন্তান চাওয়ার যে এরকম কারণ থাকতে পারে, বাপের জন্মে তা আন্দাজ করতে পারিনি।
খ্যাক খ্যাক করে সবাই হাসলাম। হাসি আর থামছিলই না আমাদের।
কিন্তু হাসতে হাসতে এটাও মনে হল যদি দেশের লোকজন, বিশেষত হিন্দিবলয়ের লোকেরা যদি এই রনির মতো করেই একটু ভাবতে পারত, তাহলে আজকে দেশে ছেলে মেয়েদের অনুপাত দেখতে বসলে লজ্জা পেতে হত না কিম্বা আমির খান কে সত্যমেব জয়তে তে ভ্রুণহত্যা নিয়ে এক ঘন্টার প্রোগ্রাম করতে হত না। 
হায় রে অভাগা দেশ, কবে যে আমরা মানুষ হব!!

Friday, 9 June 2017

#A tryst with 'Them '#

Let me share a real life unworldly experience in Itachuna Rajbari (about 100 Kms from Kolkata).

It took almost 4 hours to reach Itachuna Rajbari, courtesy some goof up on my behalf. Tired & exhausted, when finally  I checked in to my room in afternoon, the AC was running in full swing.

After lunch, there was a short tour around the house. This was followed by evening puja & some excellent songs played by a local flute player. All in all a cool experience.

Then came the dinner. The food was excellent - a unique combination of prawn, mutton, pulao, couple of veg dish , followed by payas & sweets. Definitely better than any 5 star. 

After dinner when I went back to my room at night, the AC wasn't working. I called in at the reception & they sent a person to look into the AC. However it still didn't work & we decided to put off the AC switch & open the windows ( well the window is actually bigger than any door in our current apartment), but I agreed reluctantly. Then I slept.

And then the fun started. Suddenly I woke up in the middle of the night feeling extremely cold. I was surprised to see the AC working again. I got down from bed to switch off the AC ( I didn't have any remote), but hey the switch is already off. I couldn't fathom what to do, didn't know how to turn off the AC & cursed my luck , the AC , the rajbari management (silently) & went back to sleep with a rug. 

But then I discovered something else is missing. It's my side pillow !!! I clearly remembered having it when going to sleep but it's not there. I started looking for it & there it is , under my bed . Well, with the mosquito net on, I must have kicked it extremely hard for it to be there!!! Feeling sleepy & refusing to believe anything nonsense I went back to bed & fell asleep.

No further incident at night . Only when I woke up in the morning, the pillow was agains missing & now it is lying in front of the sofa. 

Btw, I didn't have a single drop of alcohol last night. So I was even more perplexed. When the service boy came to provide me the morning tea & biscuits, I asked him about the incident. Initially he was reluctant to entertain my qs. But then after handing a 10 Rupee note, he said that 'These things' happen here. But 'They' are harmless. Then he asked whether I heard anything , I said no . Then the guy mentioned that at night people have often heard  noises of some one moving furnitures . I asked but it's only the roof on top of my roon. Then the guy stated that 'They' roam in the roof at night, that's why the noise.

The entire episode was perplexing. My logical mind refusing to acknowledge the co-existence of 'Them' , but then who did play football with my pillow in the room at night? That's still something which my logical mind failed to answer . 

Saturday, 3 June 2017

অদ্ভুতুরে অভিজ্ঞতা

গতকাল একটি জমিদার বাড়িতে বেড়াতে গেছিলাম - ইটাচুনা রাজবাড়ি।
সেখানে একটি অদ্ভুত অভিজ্ঞতা হল।
দুপুরে পৌছে যখন ঘরে ঢুকলাম, তখন ঘরে বেশ গাঁ গাঁ করে এসি চলছিল।
রাতে ঘুমোতে গিয়ে দেখলাম এসি কাজ করছে না। খবর দিলাম রিসেপশনে।  একজন এসে দেখেও গেল, কিন্তু কিছু করতে পারল না। বলল খারাপ হয়ে গেছে, কালকে মিস্ত্রি এসে ঠিক করে দেবে।

রাতে গল্প টল্প করে বালিশ নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েছি কখন খেয়াল করিনি, হঠাৎ মাঝ রাত্রে প্রচন্ড ঠান্ডায়  ঘুম ভেঙে গেল।  দেখলাম এসি  কিন্তু জোরে আওয়াজ করে চলছে।  একটু খটকা লাগল, এসির সুইচ তো আমি চালাইনি, তো কিকরে চলল ? লাইট জালিয়ে দেখলাম এসির সুইচ কিন্তু বন্ধই।  ঘাবড়ে গেলাম বেশ।  কিরকম হল এটা? এসির সুইচ বন্ধ কিন্তু এসি চলছে।
যাই হোক, মনকে বোঝালাম মেকানিকাল ডিফেক্ট, এই ভেবে বিছানায় উঠতে যাব, দেখি বালিশ টাও হাওয়া।
আমি পাশ বালিশ ছাড়া ঘুমতে পারি না, ছোটোবেলাকার অভ্যেস, তো কোথায় গেল বালিশ? খুজতে খুজতে দেখি বিছানার তলায় গড়াগড়ি খাচ্ছে।

সেকিরে বাওয়া? ফুটবল খেলছিলাম নাকি শুয়ে? যাই হোক পাশবালিশ টা উঠিয়ে আবার শুলাম।
রাতে আর কিছু হয়নি।  সকালে উঠে দেখি আবার পাশবালিশ টা আবার নেই।  খোজ করতে গিয়ে দেখলাম বালিশ টা দূরে সোফার সামনে পড়ে আছে।

মাথা কাজ করছিল না।  সকালে যিনি চা বিস্কুট দিতে ঘরে আসেন, তাকে জিজ্ঞেস করলাম।
প্রথমে কিছু বলতে চাইল না। হাতে ১০ টাকার নোট ধরাতে বলল যে এখানে এরকম নাকি হয়।  তেনারা আছেন, কারোর ক্ষতি করেন না, নিজেদের মনে ঘুরে বেড়ায়।  আরো বলল যে মাঝরাতে নাকি অনেকসময় ফার্নিচার টানাটানি করার শব্দ শোনা যায় রাতে।  কিন্তু ওপরে তো ছাদ. তাহলে?

উত্তর এল - ওই আর কি? ওনারা একটু ছাদে হেটে বেড়ান, তাই আর কি শব্দ হয়।
কি বলব ভেবে পেলাম না. শুধু বুঝলাম না ওনারা সব ছেড়ে আমার পাশবালিশ টা কে নিয়ে কেন মাঝরাতে টানাটানি করলেন?

Sunday, 30 April 2017

Bahubali 2 review

This review doesn't disclose the greatest ever secret...so you can safely continue

  Bahubali 2 is a magnum opus in true sense. Extravagance at it's best, the movie leaves no stones unturned to make it a perfect visual treat.
The frame is set on a magnanimous scale & on top of it is added extraordinary cinematography, great action sequences & mind-blogging vfx effects & you have to be in awe of the experience.
Also the marketing strategy of the movie will be a lesson to reckon for the future film makers. The 1st installment ended on a note triggering the greatest ever mystery as to why Katappa killed Bahubali. No wonder people flocked in numbers to watch the 2nd installment if not just to know the answer to the mystery.
The storyline was predictable albeit some twists. However the last 15 mins seem to have been made in haste just to complete the story line. Probably I would have loved the movie to be shorter with another sequel in the offing & given more space to the Mahendra Bahubali & his revenge story, rather than having it finished in last 15 mins .
    Prabhas & Anushka Shetty were spectacular , followed by some stellar performances by Ramya Krishnan, Satyaraj & Rana Daggubati. The performances were over the top & dramatic but you really can't expect a Nawazuddin style subtle perform in a larger than life magnum opus. So the drama actually added spice to the already spicy story.

   Verdict : Overall Bahubali 2 is an amazing experience & you have to watch it in large screens to feel it. However it might have been better if the movie had been released in 3d version but as of now the current 2d version works greatly to its favour.

Monday, 6 March 2017

স্যার

স্থান : একটি ট্রেইনিং ইনস্টিটউট ।
কথোপকথন চলছে একজন শিক্ষক ও ছাত্রের মধ্যে ।
  শিক্ষক - "তোমার দ্বারা কিছু হবে না ।"
  ছাত্র চুপ ।
  শিক্ষক - " মাথায় কিছু ঢুকল ? "
  ছাত্র - " না স্যার। "
  শিক্ষক - " বুদ্ধিটা ব্যবহার করতে হয় !!  না করলে মরচে ধরে যাবে যে !! "
  ছাত্র চুপ ।
   শিক্ষক - " কাদের পাল্লায়  যে পড়েছি !!  তা কি করা হয় ? "
   ছাত্র - " স্যার, আই.টি তে কাজ করি। "
   শিক্ষক - " হ্যা, এই বুদ্ধি নিয়ে কোথায়েই বা আর যাবে ?  তা কোন কোম্পানী ? "
   ছাত্র কোম্পানীর নাম বলল।
   শিক্ষক (একটু দমে গিয়ে) -  "ও, ওখানে আমার কয়েকজন চেনাশোনা আছে । "
   ছাত্র (নিরীহ মুখ করে) - " জানি স্যার । "
   শিক্ষক (এবার সন্দিগ্ধ চোখে) - " কি জান ?"
   ছাত্র (একটু ঊশখুশ করে) - " আসলে স্যার, আপনার সিভিটা আমিই পেয়েছি।  কাল আপনার ইন্টারভিউ টা আমিই নেব ।"
   শিক্ষক (কাঁপা কাঁপা গলায়) - "অ্যাঁ স্যার, আ-আপনিই ? " 
   ঢোক গিললেন শিক্ষক
    শিক্ষক (ঘামতে ঘামতে) - "আ-আপনি খুব তাড়াতাড়ি শিখে নিচ্ছেন স্যার।  আর ২-৩ দিন প্র্যাকটিস করলেই আপনি একদম প্রোফেশনাল লেভেলে চলে যাবেন। "
   ছাত্র - "আপনি আমায় তুমি বলুন স্যার। "
   শিক্ষক - " না না। আমি আজ উঠি। তাহলে কাল একটু দেখবেন আমায় স্যার। হেঁহেঁহেঁ আপনাকে চিনতে না পেরে কি বলতে কি বলে দিয়েছি কিছু মনে করবেন না প্লিজ। "
   এই বলে তড়িঘড়ি শিক্ষকের প্রস্থান ।

Monday, 27 February 2017

BuffMaster's review of Rangoon

'Bloody Hell'...The song catch line defines the movie perfectly.....Maybe WTF would have suited even more.
  A Vishal Bhardwaj movie on a historic event, & that too starring Kangana & Shahid  is more than enough for a non suspecting movie lover like me to go to a theatre in the middle of the night. But the joy ends there.
  From some one who had directed movies like Omkara, Maqbool, or Haidar , not sure whether he was in the right state of mind to direct such a 'bloody hell'
  
Pros - Powerful acting from Kangana & Shahid .. the chemistry was really good & the romantic scenes showed some vintage Vishal Bhardwaj touch
   Also, some of the songs were really mellifluous.
   Also it felt good to hear the original INA song

Cons - No logic, weird plot, unnecessary songs & a horrible last 30 mins. If that's a twist at the end, then better not to twist it & keep it simple.
  Saif was badly wasted. Is it the same Saif Ali Khan who played lyangra tyagi in Omkara!!! Wth !!!

BuffMaster rating - 2 ( because of Shahid -  Kangana chemistry)

BuffMaster verdict - At your risk !!!

Friday, 24 February 2017

অণুগল্পের মণিমুক্তো

      এবারের কলকাতা বইমেলা থেকে যে বইগুলি কিনলাম, সে সবকটাই তথাকথিত 'ফেসবুক লেখকদের' প্রকাশিত  বই।
আরো একটি মিল আছে বইগুলির মধ্যে।  সেটা হল প্রতিটি বই ই অনেকগুলো অণুগল্পের সমাহার ।
আমার আজকের লেখা এই বইগুলি নিয়েই। 

১.  আমার রাত্রিসুখ (লেখক - সরিৎ চট্টোপাধ্যায়)
      যা ভাল লেগেছে - প্রতিটি গল্পই খুব যত্ন সহকারে লেখা। একদিকে আছে যেমন লেখকের লেখনীর মুন্সিয়ানা, অন্যদিকে তেমন রয়েছে বিভিন্ন স্বাদের নানান গল্প। ভৌতিক, রহস্য-রোমাঞ্চ, প্রেম, কল্পবিজ্ঞান, মজাদার, মর্মস্পর্শী - এত বাহারি স্বাদের গল্পের চমৎকার সংমিশ্রণ ঘটিয়েছেন লেখক।
      যা আরো ভাল লাগতে পারত -  বইয়ের নাম।  যারাই বইয়ের মলাটটা দেখেছে ভেবেছে কোন নিষিদ্ধ বই পড়ছি। প্রথম গল্পটিও অতটা টানেনি আমায়। কিন্তু তারপর থেকে একদম ছক্কার পর ছক্কা।  তবে লেখক নিজে ডাক্তার  বলেই হয়তো গল্পগুলির মধ্যে প্রায়শই ডাক্তারি শব্দের ব্যবহার দেখা যায়। 
      মতামত - সব মিলিয়ে 'আমার রাত্রিসুখ' এবারের বইমেলায় আমার অন্যতম সেরা ক্রয় ।

২.  মার্কেট ভিজিট (লেখক - অভীক সরকার )
      এই বইটি হল জন্ম থেকে সেলসম্যান - অভীক  সরকারের দেশ বিদেশের নানান সেলস অভিজ্ঞতার প্রত্যক্ষ বিবরণ।
      যা ভাল লেগেছে - কত অভিজ্ঞতা রে বাবা!!! বেশির ভাগ গল্পই মজাদার কিন্তু সাথে আবার একটি ভৌতিক ও আছে।  কিছু গল্প আবার  সমাজের ভন্ডামি চোখে আঙুল দিয়ে দেখায়। 
   তবু বলব বৈচিত্র্য নয়, এই বইয়ের প্রধান আকর্ষণ হল লেখকের লেখনশৈল্পী। সে ভাষাই হোক বা লেখার পরতে পরতে রঙ্গ ব্যঙ্গ, সব মিলিয়ে অভীকবাবুর লেখা একটা মায়াজাল সৃষ্টি করেছে। 
      যা আরো ভাল লাগতে পারত - অভিজ্ঞতাগুলির মধ্যে বৈচিত্র্য একটু কম।  মানে একটু প্রেম-টেম, পরকীয়া-টরকীয়া থাকলে আরেকটু জমে যেত আর কি !!! তবে যেচে কে আর বউয়ের মার খেতে চায় !!!
      মতামত - যারা বাঙলা ভাষার স্বাদ নিতে ভালবাসেন তাঁরা এই বইটিকে অবশ্যই চোখ, কান, নাক বা আরো যা যা আছে, সব বুজে কিনে ফেলুন  ঠকবেন না গ্যারান্টী।

৩.  শান্ত  (লেখক - রাজা ভট্টাচার্য )
      যা ভাল লেগেছে - রাজা ভট্টাচার্য সৃষ্ট একটি অনন্যসাধারণ চরিত্র এই শান্ত, যে হাসি মুখে আমাদের দৈনন্দিন  ছোট বড় সমস্যা থেকে শুরু করে নানাবিধ সামাজিক ব্যধির সমাধান করে দেয় তার নিজস্ব উপায়ে।
লেখকের নিজের ভাষায় - 'আমাদের সকলের মধ্যে একটা করে শান্ত আছে।  সুযোগ ও সাহসের অভাবে তা সামনে আসে না অধিকাংশ সময়ে। '
আশা রাখি রাজাবাবুর সহজ, সরল, ঝরঝরে ভাষায় লেখা শান্তর কাহিনী পড়ে আমাদের মধ্যেকার সেই মানবিক মানুষটা বেড়িয়ে আসবে সময়ে সময়ে।
       যা আরো ভাল লাগতে পারত - কয়েকটি গল্প একি ধাঁচের ।  কিছু গল্প পড়ে মনে হয়েছে যেন একটু জোর করে হাসানোর চেষ্টা হয়েছে। কিন্তু সেগুলি সংখ্যায় নগন্য।
      মতামত - শান্ত পড়ুন।  একবার শান্তর সাথে আলাপ করে ফেললে ওকে ভালবেসে ফেলবেনই, কেউ আটকাতে পারবেনা !!!

৪.   বংপেন৭৫ (লেখক - তন্ময় মুখার্জ্জী) :
       তন্ময় মুখার্জ্জীর ব্লগে প্রকাশিত ৭৫টি অণুগল্পের সংকলণ এই বইটি বইমেলায় পেতে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে।  যখনি পত্রভারতীতে গেছি, শালারা বলে স্টক শেষ।  
   অবশেষে একদিন পেলাম আর পরে পড়তে গিয়ে বুঝলাম কেন এটা হটকেকের মতন বিকোচ্ছিল।
       যা ভাল লেগেছে -  স্টাইল, ভ্যারাইটি, কন্টেন্ট সবেতেই এ একদম যাকে বলে টপার।  এই বইটা পড়ে আমি হো হো করে হেসেছি, চোখের জল ফেলেছি, ভয় পেয়েছি, প্রেমে পড়েছি, তবে সবচেয়ে বেশী যেটা করেছি তা হল - ভেবেছি।  কত ভাবনার যে খোরাক পেয়েছি বইটা পড়ে তা বলে বোঝানো যাবে না।  বিশেষত কল্পবিজ্ঞানের গল্পগুলো পড়লে লেখকের চিন্তাভাবনার গভীরতার একটা আন্দাজ পাওয়া যায়।
       যা আরো ভাল লাগতে পারত - কয়েকটি গল্প একটু বেশীই ছোট যাকে বলে অধিকাণু।  সেগুলি পড়ে বোঝার আগেই শেষ। অনেকটা টি-টোয়েন্টী ম্যাচ দেখতে গিয়ে যদি দেখেন টি-ফাইভ ম্যাচ তাহলে যেমন লাগবে। উত্তেজনা হবে কিন্তু মন ভরবে না।
       মতামত - বংপেন৭৫ কিন্তু একদম যাকে বলে খাঁটি সোনা। কিনুন, ধার করুন, চুরি করুন - কিন্তু বইটা পড়ুন।

      সবশেষে বলি অণুগল্পের এই ধারা বাংলা সাহিত্যে যুগোপজয়ী হবে কিনা জানা নেই, কিন্তু আমি বা আমার মত অনেকেই আছে যারা এই অণুগল্পের মাধ্যমেই আবার বাংলা সাহিত্যের প্রতি আকৃষ্ট হয়েছে। 
  ঠিক যেমন জীবনমুখী গান একসময়ের বাংলা সঙ্গীতকে নতুন দিশা দেখিয়েছিল, তেমনি কে জানে এই অণুগল্পই হয়তো বা বাংলা সাহিত্যের ভবিষ্যৎ ।